গুগল অ্যাডসেন্স ছাড়াও অনলাইনে আয় করার ৯টি উপায়

গুগল অ্যাডসেন্স ছাড়াও অনলাইনে আয় করার ৯টি উপায়

গুগল অ্যাডসেন্স ছাড়াও অনলাইনে আয় করার ৯টি উপায়

বর্তমান সময়ে আমরা নানা রকম অনলাইন ভিত্তিক কাজ করে বাড়তি আয় করছি। ব্লগিং, এসইও, কনটেন্ট রাইটিং, ডিজিটাল মার্কেটিং, ফেইসবুক মার্কেটিং, পেইড ট্রাফিক, ভিডিও দেখে, ই-বুক পড়ে, ইউটিউব থেকে ইত্যাদিন উপায়ে আমরা বাড়তি আয় করছি।

আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে আমি মোট ১০টি বাড়তি আয় করার উৎস বলার চেষ্টা করবো যার মাধ্যমে

আপনি অনেক ভালো আয় করতে পারবেন অনলাইনের মাধ্যমে। সবগুলো বিষয় জানার জন্য অবশ্যই আমাদের সাথেই থাকুন।

 

আশা করবো আর্টিকেলটি পড়া শেষ হলে আপনি অনেক তথ্য জানতে ও বুঝতে পারবেন।

অনলাইনে বাড়তি আয় করার জন্য আমরা কত কিছুই তো করি।

তবে সঠিকটা জেনে বুঝে যদি করা যায় তাহলে অনেক ভালো করা যায় এই সেক্টরে। অনেকেই ইদানিং অনেক বেশি প্রতারিত হচ্ছে।

আমি প্রতিরিত হওয়ার লিংক নিচে দিয়ে দিচ্ছি। যেমন,

 

১. ফেইকবুক এডমিন ডিল করতে গিয়ে প্রতারিত হচ্ছে।

২. ফেইসবুক পেজের মাধ্যমে লেনদেন করতে গিয়ে প্রতারিত হচ্ছে।

৩. PTC সাইটে কাজ করতে গিয়ে প্রতারিত হচ্ছে।

৪. ওয়েবসাইট থেকে কোন কিছু কেনার জন্য প্রতারিত হচ্ছে।

৫. ই-কমার্স সাইট থেকে কোন পণ্য কিনে প্রতারিত হচ্ছে।

উপরোক্ত লিস্টগুলো জেনে বুঝে চেষ্টা করবো এসব জায়গায় লেনদেন করার আগে ফিজিক্যাল ভিজিবিলিটিটা দেখে নেওয়ার।

আসলে আমাদের নিজেদের সচেতন হওয়া ছাড়া এসব থেকে মুক্ত হওয়ার বিকল্প কোন উপায় নেই।

 

যাইহোক আজকের আর্টিকেলে আমি অনলাইনে আয় করার ১০টি উপায় নিয়ে আলোচনা করার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ।

তাহলে শুরু করা যাক বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা। যেমন,

১. গুগল অ্যাডসেন্স থেকে আয়।

২. ব্লগিং করে আয় করা। 

৩. থিম বিক্রি করে আয় করা। 

৩. ইউটিউব থেকে আয় করা। 

৪. ওয়েবসাইটে এসইও সার্ভিস দিয়ে আয় করা। 

৫. ওয়েবসাইট এসইও করে আয় করা। 

৬. কনটেন্ট রাইটিং বা আর্টিকেল রাইটিং এর মাধ্যমে আয়।

৭. ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে। 

৮. ফেইসবুক মার্কেটিং করে আয় করা। 

৯. পেইড ট্রাফিক নিয়ে কাজ করা। 

১০. ভিডিও  দেখে এবং ই-বুক পড়ে আয় করা। 

>> গুগল অ্যাডসেন্স ছাড়াও অনলাইনে আয় করার ৯টি উপায়

 

উপরোক্ত ১০টি ছাড়াও আরও অনেকগুলো উপায় আছে।

যেমন, ফেইসবুক গ্রুপে পণ্য বিক্রি করে, ফেইসবুক পেজের মাধ্যমে, ই-কমার্স পণ্য বিক্রি করে,

পুরানো পণ্য রিসেল করে, মানি এক্সচেজ্ঞ করে, বিভিন্ন সাইটে পেমেন্ট করার মাধ্যমে,

ভারচুওয়্যাল এসিসটেন্ট এর মাধ্যমে সহ আরও অনেকগুলো উপায় আপনি অনলাইনেই আয় করতে পারবেন নিয়মিত।

আমি উপরের ১০ টি বিষয়গুলো নিয়ে সামান্য বর্ননা করার চেষ্টা করতেছি।

আশার করবো সবগুলো তথ্যই আপনি বুঝতে পারবেন। ইনশাআল্লাহ।

 

১. গুগল অ্যাডসেন্স থেকে আয়

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে জনপ্রিয় অনলাইনের মাধ্যমে আয় করার মাধ্যম গুলো মধ্যে অন্যতম

একটি মাধ্যম হলো গুগল অ্যাডসেন্স এর মাধ্যমে আয় করা।

এর মাধ্যেমে আপনি প্রতি মাসে সর্বনিম্ন ১০ হাজার থেকে শুরু করে অনেক বেশি টাকা আয় করতে পারবেন।

সহজ হিসেব যদি করা হয় আপনার যদি গুগল অ্যাডসেন্স যুক্ত ১০টা সাইট থেকে থাকে তাহলে আপনি

অনলাইনের মাধ্যমে আরও বেশি আয় করতে পারবেন অনেক সহজেই।

সবচেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যমে আয় করার একটু আলাদা কিছু সুবিধা আছে। আপনি গুগল থেকে যেভাবে

আর যত সহজেই আয় করতে পারবেন অন্যন্যা প্লাটফরম থেকে কতটা সহজেই আয় করতে পারবেন না।

আসলে গুগল আমাদেরকে আলাদা কিছু নিয়ম ও সুবিধা দিয়ে তার সুবিধার জন্যই। ‍

গুগল এমন একটি প্লাটফরম যেখানে প্রতি সেকেন্ড ব্যবহার করে মানুষ ও গুগল নিজেও আয় করে থাকে।

অনলাইন জগতে সবচেয়ে এগিয়ে থাকলে গুগল তার মত এতটা দ্রুত কোন কম্পানি এগিয়ে যেতে পারে নাই।

 

>> গুগল অ্যাডসেন্স ছাড়াও অনলাইনে আয় করার ৯টি উপায়

বর্তমান সময়ে আপনি যদি একটু সচেতন হতে পারেন তাহলে অনেক ভালো আয় করতে পারবেন এটি ব্যবহার করে।

এর জন্য আপনার নিজের একটি ডোমেইন + ওয়েবসাইট থাকতে হবে। আর সেখানে আপনাকে নিয়মিত কনটেন্ট পাবলিশ করতে হবে।

এভাবে আপনি আপনার সাইটটাকে যদি অনেক দিন পর্যন্ত রান করতে পারেন।

তাহলে দেখা যাবে যে, একটা সময় আপনি অনেক ভালো মাসিক আয় করতে পারছেন।

এটাকে অনেক সময় রয়্যালিটি আর্নিং ও বলা হয়ে থাকে।

গুগল অ্যাডসেন্স নিয়ে কিছু প্রশ্ন আমাদের মনের মধ্যে হয় সেগুলো উত্তর এখানে দেওয়ার চেষ্টা করবো ইনশআল্লাহ।

এছাড়াও আপনাদের মনে কারো কোন প্রশ্ন থাকলে অবশ্যই জানাবেন।

 

প্রশ্নঃ- গুগল অ্যাডসেন্স থেকে প্রতি মাসে কত টাকা আয় করা যায় ?

উত্তরঃ- বর্তমান সময় যদি হিসেব করি তাহলে আপনার একটা গুগল অ্যাডসেন্স একাউন্ট থেকে

প্রতি মাসে আপনি সর্বনিম্ন ১০০ ডলার থেকে শুরু করে ১ লক্ষ ডলার পর্যন্ত আয় করতে পারবেন।

যদিও আমি ১০০ ডলার বলেছি কারণ ১০০ ডলারের নিচে গুগল ডলার সেন্ড করে না।

আর এ কারণেই আমি সর্বনিম্নটা বলেছি। তারপরে আপনি সর্বচ্চ্য টাকা আয় করার জন্য

গুগল অ্যাডসেন্স ওয়েবসাইটের পাশাপাশি যদি ইউটিউবেও থাকে তাহলে সেখান থেকেও আরও বেশি আয় করা সম্ভব।

 

প্রশ্নঃ- কতটা সাইট যুক্ত করা যাবে একটা একাউন্টে ? 

উত্তরঃ- অনেক বেশি সাইট যুক্ত করতে পারবেন। আপনি যদি ৫০ টা সাইট একটা গুগল অ্যাডসেন্স

একাউন্টে যুক্ত করেন তাহলেও পারবেন। তবে ২-৩ টা সাইট যুক্ত করাই সবচেয়ে বেশি ভালো ও সুবিধা।

এর কারণ হলো আপনি যখন সাইটগুলো আপডেট করবেন সেক্ষেত্রে সাইটের সংখ্যা যদি বেশি থাকে তাহলে

আপনাকে আপডেট করার জন্য অনেক বেশি সময় ব্যয় করতে হবে।

আর যদি আপনি নিয়মিত আপডেট না করেন তাহলে আপনার সাইট দেখা যাবে একটা র‌্যাংক করছে না।

 

প্রশ্নঃ- গুগল অ্যাডসেন্স থেকে কত দিন আয় করতে পারবো ?

উত্তরঃ- এটি শুরুর দিক থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত চলছে। তবে আগামীতে যতদিন

চলবে আপনিও ঠিক ততদিনই আয় করতে পারবেন। আপনাকে প্রফিট দিতে তো গুগলের কোন সমস্যা নেই।

কারণ গুগল বিভিন্ন কম্পানি থেকে অ্যাডস নেয় এবং সেগুলোকে তার অ্যাডস এর মাধ্যমে পাবলিশ করে থাকে।

এখানে এলাকার উপর নির্ভর করে পার্থক্য হয়ে থাকে। আর সবচেয়ে বড় কথা হলো

আপনি আগামীতে অনেক দিন পর্যন্ত আয় করতে পারবেন এখান থেকে।

২. ব্লগিং করে আয় করা

৩. থিম বিক্রি করে আয় করা

৩. ইউটিউব থেকে আয় করা

৪. ওয়েবসাইটে এসইও সার্ভিস দিয়ে আয় করা

৫. ওয়েবসাইট এসইও করে আয় করা

৬. কনটেন্ট রাইটিং বা আর্টিকেল রাইটিং এর মাধ্যমে আয়

৭. ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে

ডিজিটাল মার্কেটিং শব্দটা আর কিছুদিন বলতে আজকে থেকে ৩ বছর বা ৪ বছর আগেও এতটা জনপ্রিয় ছিল না।

২০১৯ সালের করোনা আসার পর থেকে শুরু করে বর্তমানে অনেক বেশি চাহিদা এই সেক্টরটার।

ডিজিটাল মার্কেটিং আসলে অনেক বড় একটা ধাপ যা আমি উপরে ও নিচে কিছু পয়েন্ট আলাদা করে বলেছিলাম।

এখানে, ফেসবুক মার্কেটিং, ইউটিউব মার্কেটিং, ইনস্ট্রাগ্রাম মার্কেটিং, পিনাটল্যাব মার্কেটিং সহ আরও যত

অনলাইন প্লাটফরম আছে সবগুলোতে একত্রে যেই মার্কেটিং করা হয় মূলত সামগ্রিককেই বলা হয় ডিজিটাল মার্কেটিংং।

যদিও আমরা ডিজিটাল মার্কেটিং বলতে এতটা ডিপ চিন্তাভাবনা করি না।

আর আমাদের মধ্যে সচেতনতাও অনেক কম এই বিষয়টা নিয়ে।

আশা করবো গুগল বা ইউটিউবের মাধ্যমে আরও ভালো করে বিস্তারিত জেনে নিতে পারবেন ইনশাআল্লাহ।

অনলাইনে আয় আয় করার জন্য অবশ্যই আপনাদেরকে এসব বিষয়গুলোতে পরিপূর্ণ ভাবে জ্ঞান থাকতে হবে।

 

৮. ফেইসবুক মার্কেটিং করে আয় করা

ফেসবুক মার্কেটিং বর্তমানে জনপ্রিয়তার শীর্ষে অবস্থিত একটি মার্কেটপ্লেস।

এখানে আপনি আপনার মূল্যবান পন্য গুলো অনেক সহজেই সেল করতে পারবেন।

এজন্য অবশ্যই আপনাকে ফেসবুকে অ্যাড চালাতে হবে। আর ফেইসবুকের এ্যাডগুলো একটা নির্দিষ্ট এলাকা ভিত্তিক হয়ে থাকে।

যেমন, ধরুন আপনি কোন একটা গ্রামে বাস করেন বা ঢাকা ‍মিরপুর এরিয়াতে থাকেন।

আপনি যখন অ্যাডস চালাবেন তখন আপনাকে সেই নির্দিষ্ট এলাকাতেই সেই মার্কেটিং টা চলবে। প্র

তিদিন যদি আপনি মোবাইল ব্যাকিং লেনদেন এর গ্রাফটা একটু লক্ষ্য করেন তাহলে বিষয়টা বুঝতে পারবেন।

কারণ মোবাইল ব্যাকিং এর মাধ্যমে প্রতিদিন হাজার কোটিং টাকার বেশি লেনদেন করা হয়।

আসলে মোবাইল ব্যাকিংগুলো কিন্তু এসব মার্কেপ্রেস থেকেই পণ্য কিনে থাকে সবচেয়ে বেশি।

আমাদের দেশের রিসেল, পুরানো পণ্য, গ্রামের পণ্য, তাজা বা খাটি

পন্যগুলো পাওয়ার জন্য অবশ্যই আপনাকে এইসব মাধ্যমেই লেনদেন করতে হবে। আর এগুলো শুরুতে

অল্প করে লেনদেন করে করে ভেরিফাই করে নেওয়া হয়।

অনেক সময় আইডি কার্ড দেওয়া হয় যার কারণে সমস্যা হলে সেটা আবার চেক করা হয়।

বর্তমানে ফেসবুকের লেনদেন আরও নিরাপদ করার জন্য এডমিন ডিলের অপশান চালু করেছে অনেক গ্রুপের মোডারেটর এবং এডমিন।

৯. পেইড ট্রাফিক নিয়ে কাজ করা

পেইড ট্রাফিক নিয়ে এখনও যদিও অজানা আমাদের কাছে তবে এর মাধ্যমেও আপনি বাড়তি আয় করতে পারবেন।

পেইড ট্রাফিকের বিভিন্ সিস্টেম আছে তবে সগেুলো জেনে বুঝে যদি আপনি করতে পারেন তাহলে অব্যশ্যই ভালো করতে পারবেন।

আমাদের দেশে যদিও পেইড ট্রাফিকের তেমন কোন মূল্যায়ণ নেই তবে বাইরের দেশে পেইড ট্রাফিকের যথেষ্ট মূল্য রয়েছে।

এর জন্য একটা টিম ওয়ার্ক প্রয়োজন পড়ে। আর টিম ওয়ার্ক না করলে অনেক সময় এই কাজে ভালো করা যায় না।

টিমের প্রত্যেক সদস্যাকে জানতে হয় এবং কিভাবে অরগানিক ভাবে ট্রাফিক আসবে সেই বিষয়গুলোও সেট করে নিতে হয়।

এগুলো যদিও একটা ছোট ট্রেইনিং করার মাধ্যমেও শেখা যায় তারপরেও আমরা চেষ্টা করবো বিস্তরিতটা জেনে তারপর সেটা করতে।

অনলাইন জগতে আপনি সব সময় মনে রাখবেন, এখানে যেমন, আপনি একদিনে কয়েক শত ডলার আয় করতে পারবেন।

তেমনি মাস শেষে সকল ডলার হারিয়েও ফেলতে পারবেন।

এখানে ভারচুয়্যাল জগত আর এই জগতে আয় করার জন্য আপনাকে অবশ্যই অব্যশই বেশি জেনে তারপর সেটা নিয়ে কাজ করতে হবে।

বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দেশের আইপি ব্যবহার করে ভারচুয়্যাল জগতে আয় করার সম্ভব হয়।

 

১০. ভিডিও  দেখে এবং ই-বুক পড়ে আয় করা

বর্তমানে অনেকভাবেই আয় করা যায়। তারমধ্যে ভিডিও দেখে দেখেও আয় করা যায়।

আপনি যদি অনেক ভালো ইন্টারনেটযুক্ত কানেকশান নিয়ে কাজ করে থাকেন তাহলে আপনি ভিডিও প্লে করে রেখে আপনার ডিভাইসটি অন করে রাখতে পারবেন। একটা একটা নির্দিষ্ট ওয়াচ টাইম হলে সেটা সাবমিট করতে হবে।

আপনি যখন এই সব সময়গুলো তাদেরকে ডকুমেন্টস এর মত সো করবেন তখন আপনাকে তারা পেমেন্ট করবে।

হয়তো পেমেন্টটা অনেক বেশি সামান্য তবে করবে এটাই সবচেয়ে বড় কথা।

কারণ এখন বিভিন্ন কারনে মানুষ বাড়তি আয় করার বিভিন্ন উপায় সম্পর্কে জানার চেষ্টা করছে।

আর এই সময়ে আপনি যদি সামান্য তেমন কিছু জানতে ও বুঝতে পারেন সেটাও আপনার বাড়তি আয় করার অন্যতম একটা মাধ্যম হিসেবে কাজ করবে।

 

>> গুগল অ্যাডসেন্স ছাড়াও অনলাইনে আয় করার ৯টি উপায়

ভিডিও দেখার পাশাপাশি আপনি ই-বুকে সময় দিয়েও আয় করতে পারবেন। বর্তমানে সবচেয়ে বড় ই-বুক আছে গুগলের।

গুগল তার ই-বুকে অনেক বই দিয়ে রেখেছে। যদিও আমাদের দেশের জন্য ই-বুক ফ্রি তবে

বাইরের দেশ যেমন, USA, UK সহ উন্নতমানের সকল দেশে ই-বুক পড়ার জন্য পে করতে হয়।

কারণ তারা একটা প্লাটফরম ব্যবহার করবে। আর সেখান থেকে আয় না হয়ে ব্যয় তাহলে তাহলে

আমাদের মত উন্নয়নশীল দেশের মানুষ এগুলোতে সময় ব্যয় করতে চাইবে না। তাই গুগল আমাদের দেশের জন্য ফি করে দিয়েছে।

 

উপরে ১০টি বিষয়গুলো আপনি একবার নয় বারবার পড়ুন এবং নিজেকে প্রশ্ন করুন কোন কাজটাতে আপনি

ভালো দক্ষ এবং কোন কাজটা আপনাকে টানে। আপনি সেই কাজটা ‍যদি করতে পারেন তাহলে সেখান থেকেই

আপনি বাড়তি আয় করতে পারবেন। আশা করবো কনটেন্টটি আপনাকে অনেক তথ্য দিয়ে সহযোগীতা করেছে।

একম আরও কনটেন্ট পাওয়ার জন্য আমাদের ব্লগে নিয়মিত

ভিজিট করুন এবং আমাদের ফেইসবুক ও ইউটিউব চ্যানেলে যুক্ত খাকুন।

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ করার মাধ্যমগুলো নিচে দেওয়া হলো।

ফেইসবুক পেজের লিংক = ডিজিটাল আইটি সেবার পেজ

আইডির লিংক = ডিজিটাল আইটি সেবার আইডি

ফেইসবুক গ্রুপের লিংক = ডিজিটাল আইটি সেবার গ্রুপ 

ইউটিউব চ্যানেল এর লিংক = Digital It Seba 

আমাদের ইমেইল = digitalitseba@gmail.com

উপরোক্ত মাধ্যমের যে কোন একটাতে আপনি আমাদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতে পারবেন।

তবে সবচেয়ে ভালো উপায় হলো কমেন্ট করে জানানো এবং মেইল করা এবং পেজে ম্যাসেজ করা।

One Comment on “গুগল অ্যাডসেন্স ছাড়াও অনলাইনে আয় করার ৯টি উপায়”

Leave a Reply

Your email address will not be published.